শনিবার,২৪ অক্টোবর, ২০২০ অপরাহ্ন

ভৈররে র‍্যাব হাতে আর্ন্তজাতিক মানবপাচারকারী আটক

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বার, ২০২০ ২৩ ২২

ভৈরব প্রতিনিধি-

তুরস্ক, ইটালী, গ্রিস, মালয়েশিয়া, কানাডাসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশের জাল ভিসা, জাল পাসপোর্টের ফটোকপি এবং জাল টার্কি ভিসায় ব্যবহৃত এ্যাম্বুস সীল তৈরীর মেশিনসহ ১ জন মানবপাচারকারীকে আটক করেছে র‌্যাব-১৪।

সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) সকাল ৭ টার দিকে সিলেট মহানগরীর সদরের মজুমদারপাড়া এলাকার মো: আতাউর রহমান এর ছেলে মাছুম আহমদ (৩১) এর বাসা তল্লাশী করে বিভিন্ন দেশের জাল ভিসা, জাল পাসপোর্টের ফটোকপি এবং জাল টার্কি ভিসায় ব্যবহৃত এ্যাম্বুস সীল তৈরীর মেশিন ও অন্যান্য কাগজপত্র সহ তাকে আটক করে র‍্যাব।

র‌্যাব-১৪ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের জানান, প্যালেস্টাইন এ্যাম্বাসী কর্তৃক মাসুদ আহমেদ এর বিরুদ্ধে তুরস্ক, ক্যামেরুনসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশের নকল পাসপোর্ট, ভিসা বানিয়ে মানবপাচারের তথ্য জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) নিকট আসে। এই তথ্যের ভিত্তিতে জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা এবং র‍্যাব দীর্ঘদিন যাবত নিবিড় পর্যবেক্ষণ করে মাসুদ আহমেদ এর বিরুদ্ধে প্রাথমিক সত্যতার প্রমান পান। যার প্রেক্ষিতে আজ সোমবার সকাল ৭ টার দিকে জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) এবং র‍্যাব-১৪ একটি বিশেষ আভিযানিক দল সিলেট মহানগরীর সদরের মজুমদারপাড়া এলাকায় তার বাসায় অভিযান পরিচালনা করে জাল পাসপোর্টের ফটোকপি এবং জাল টার্কি ভিসায় ব্যবহৃত এ্যাম্বুস সীল তৈরীর মেশিনও অন্যান্য কাগজপত্রসহ তাকে আটক করে।

র‍্যাব আরো জানায়, মাছুম আহমেদ বাংলাদেশ,ক্যামেরুনে অবস্থান করে নেপাল, দুবাই, দিল্লী, সৌদি আরব,তুর্কি ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া দিয়ে জার্মান, নিউজিল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়া, রোমানিয়া, ইটালী, গ্রিস, মালয়েশিয়া, কানাডাসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে মানবপাচার করে আসছিল। এমনকি সে নিজেও এইসব দেশে যাতায়াত করত। মাসুম ইউরোপ এবং ইসরাইলের পাসপোর্ট বেশি বানাতো এবং স্প্যানিশ পাসপোর্ট বানিয়ে সে ২ হাজার ইউরো করে বিক্রি করতো। 

এছাড়া বিভিন্ন দেশের নকল পাসপোর্ট তৈরি করে বিভিন্ন দেশের ভিসার নকল স্টিকার বানিয়ে ভূয়া ভিসা দেখিয়ে সাধারণত মানুষের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিত। এই মানবপাচাকারী মাসুমের সাথে দেলোয়ার, মাহি, জুনেল, আল-আমিন ও আনোয়ার নামক ব্যক্তিদের নিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে তারাও সবাই মানবপাচারে জড়িত। ‘আল-আমানাহ ইন্টারন্যাশনাল’ ভিসা প্রসেসিং সেন্টার এর চেয়ারম্যান ও সিও জুনেল আহমদকে দিয়েই মাছুম ভিসা সংক্রান্ত কাজ করে থাকতেন। 

উক্ত ভিসা সেন্টারটির ঠিকানা ৩২, সিলেট মিলেনিয়াম (নীচ তলা), জিন্দাবাজার সিলেট। জুনেল আহমেদ সিলেট মিলেনিয়াম শপিং কমপ্লেক্স ব্যবসায়ীক সমিতির কোষাধ্যক্ষ। এছাড়া মাছুম ভিসা সংক্রান্ত বিষয়ে ইমরান নামক একজনের সাথে ঢাকাতে নিয়মিত যোগাযোগ করে এবং পূবালী ব্যাংকের রহমান এন্টারপ্রাইজ নামক একাউন্টে মাছুম লেনদেন করে থাকতেন।

গ্রেফতারকৃত আসামী মাছুম আহমদ এর বিরুদ্ধে আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানান র‍্যাব। 


নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2018 Andolon71
Theme Developed BY Rokonuddin