শুক্রবার,১০ জুলাই, ২০২০ অপরাহ্ন

কালিগঞ্জে সরকারী ৫০ টন গম উদ্ধার

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৮ মে, ২০২০ ২১ ৫৫

হাবিব, কালিগঞ্জ থেকে-

শ্যামনগর থেকে পাচার করা সরকারী খাদ্য অধিদপ্তরের কাবিখা প্রকল্পের ৫০টন গম মজুদ করার ঘটনায় কালিগঞ্জের ভাড়াশিমলা ইউনিয়নের সুলতানপুর কলোনী এলাকায় মনিমুক্তা রাইস মিলের গুদাম ঘর হতে ৫০ মেট্রিক টন গম উদ্ধার করেছে কালিগঞ্জ থানা পুলিশ। 

ঘটনায় সংশ্লিষ্টতায় জড়িত সন্দেহ ভাজন হিসাবে মিল মালিক আব্দুল গফফারের পুত্র মনিরুল ইসলাম ও ম্যানেজার মুকুল হোসেন এবং শ্যামনগর উপজেলার রমজান নগর ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য পবিত্র মন্ডল কে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতদের গতকাল বৃহস্পতিবার ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে পুলিশ। 

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সাতক্ষীরা জেলা পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমানের নির্দেশে কালিগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ দেলোয়ার হুসেনের নেতৃত্বে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কালিগঞ্জ সার্কেলের জামিরুল ইসলামের উপস্থিতিতে বুধবার বিকাল সাড়ে ৫টা হতে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে কালিগঞ্জ উপজেলার ভাড়াশিমলা ইউনিয়নে অবস্থিত সুলতানপুর কলোনিতে মনি মুক্তা রাইস মিলের গোডাউন ঘর হইতে এ গম উদ্ধার করা হয়। 

অভিযানের সময় মিল মালিক উপজেলার পূর্ব নলতা সান পুকুর গ্রামের আব্দুল গফফারের পুত্র মনিরুল ইসলাম ও ম্যানেজার আশকারপুর গ্রামের মুকুল কে আটক করে ঐ রাতেই পুলিশ থানায় নিয়ে আসে। পরে বৃহস্পতিবার সকালে অভিযান চালিয়ে শ্যামনগর থানার রমজান নগর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য পবিত্র মন্ডল কে পরানপুর তার নিজ বাড়ি থেকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। 

এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার সময় সাতক্ষীরা জেলা পুলিশ সুপার ঘটনাস্থল ও থানা পরিদর্শন করেন। 

সম্প্রতি বয়ে যাওয়া ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্থ শ্যামনগর এলাকায় বাঁধ পুনঃবাসন ও রক্ষনা বেক্ষনের জন্য  জন্য কাজের বিনিময় খাদ্য কর্মসূচীর আওতায় ঐসকল গম বরাদ্দ দেওয়া হয়। উক্ত গম বিভিন্ন ভুঁয়া প্রকল্পের মাধ্যমে ডিও বিক্রি করে শ্যামনগর থেকে পাচার করে কালিগঞ্জে মজুদের সময় আটক করা হয়। 

তবে উক্ত ঘটনা প্রেস ব্রিফিং এর মাধ্যমে সাতক্ষীরা জেলা পুলিশ সুপার বিস্তারিত জানাবেন বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছেন। 

একটি দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে শ্যামনগর উপজেলায় ভেঁড়ীবাঁধ সংস্কার সহ বিভিন্ন উন্নয়ন খাতে বরাদ্দ করা হয় গম। কাবিখা প্রকল্পের এ গম কাজ না করেই ভুঁয়া কাজের প্রকল্পে দেখানো হয়। খাদ্য কর্মকর্তা নুরুল আমিনের সহযোগীতায় গম উত্তোলনের ডিও কাগজ তৈরী করা হয়। প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ গম না উত্তোলন করে কালো বাজারে বিক্রির জন্য গোডাউনে মজুদ রাখার জন্য পাচার করা হয়। 

সে গুলো শ্যামনগরের আলোচিত একজন শীর্ষ জনপ্রতিনিধির ঘনিষ্ঠ ভাজন ডিও ব্যবসায়ী মোহাম্মাদ আলীর নিকট হতে কালিগঞ্জের আলোচিত ব্যবসায়ী আব্দুল গফফার ৫০টন গম ক্রয় করেন বলে জানান। এবিষয়ে আব্দুল গফফার আন্দোলন৭১ কে জানান আমি শ্যামনগরের মোহাম্মাদ আলীর নিকট হইতে ৪৯ টন ২’শ কেজি বিভিন্ন ডিও লেটারের গম ক্রয় করি। সমস্ত কাগজ পত্র তার নিকট আছে জানালেও অভিযানের সময় কাগজ পত্র নিয়ে পুলিশের সামনে হাজির না হওয়া প্রসঙ্গে কোন কথা বলেনি। 

থানার ওসি তদন্ত আজিজুর রহমান জানান আটককৃতদের ৫৪ ধারায় জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। মুল মামলা দূর্নীতি দমন কমিশনের কর্মকর্তারা করবেন বলে জানান। আটককৃত গমের বস্তা গুলো বুধবার রাত হতে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত ট্রলিযোগে থানায় এনে জব্দ তালিকা করে আটক রাখা হয়েছে। 

এ প্রসংগে কালিগঞ্জ থানার অফিসার দেলোয়ার হুসেনের নিকট অভিযানের সময় জিজ্ঞাসা করলে তিনি আন্দোলন৭১ কে বলেন পুলিশ সুপারের নির্দেশে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কালো বাজারের গম আটক করা হয়েছে। 


নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2018 Andolon71
Theme Developed BY Rokonuddin