শুক্রবার,২৭ নভেম্বর, ২০২০ অপরাহ্ন

পটুয়াখালীতে যাত্রীবাহী স্পিডবোট ডুবি, নিখোঁজ ৫

রিপোর্টারের নাম: গাজী কাইয়ুম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২৩ অক্টোবার, ২০২০ ১১ ৩০

নিজস্ব প্রতিবেদক, পটুয়াখালী-  

পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার আগুনমুখা নদীতে যাত্রীবাহী স্পীডবোট ডুবির ঘটনায় চালকসহ ১৩ জন যাত্রীকে জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হলেও বৃহস্পতিবার রাত ৮টা পর্যন্ত পাঁচজন যাত্রী নিখোঁজ থাকার খবর পাওয়া গেছে। 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার কোড়ালিয়া থেকে দুর্যোগ পূর্ণ আবহাওয়ার মধ্যে গলাচিপার পানপট্টি লঞ্চঘাটের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী স্পিডবোটটি আগুনমুখা নদীতে উত্তাল ঢেউয়ের তোড়ে আকস্মিক ডুবে যায়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কলাপাড়া সার্কেল) আহম্মেদ আলী বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আমার জানা মতে স্পীড বোটে মোট ১৭ জন যাত্রী ছিল। এর মধ্যে ১২ জন উদ্ধার হলেও ৫ জন নিখোঁজ রয়েছে। উদ্ধার তৎপরতা চলছে।

উদ্ধার হওয়া যাত্রী ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সূত্রে জানা গেছে, বিকেল সাড়ে ৫ টার দিকে রাঙ্গাবালী উপজেলার কোড়ালিয়া লঞ্চঘাট থেকে ১৭ জন যাত্রী নিয়ে আহম্মেদ এন্টারপ্রাইজের মালিকানাধীন একটি স্পিডবোট গলাচিপার পানপট্টির উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে। উত্তাল আগুনমুখা নদী পাড়ি দেয়ার সময় প্রচন্ড ঢেউয়ের তোড়ে তলা ফেটে চালকসহ যাত্রীদের নিয়ে স্পিডবোটটি ডুবে যায়। দুর্ঘটনার দেড় ঘন্টা পর অপর দু’টি স্পিডবোট উদ্ধার অভিযান চালিয়ে চালকসহ ১৩ জন যাত্রীকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। কিন্তু পাঁচজন এখনও নিখোঁজ রয়েছে।

উদ্ধার হওয়া রাঙ্গাবালীর বাহেরচর কৃষি ব্যাংক শাখার ম্যানেজার দেলোয়ার হোসেন জানান, প্রচন্ড ঢেউয়ের কবলে পড়ে স্পিডবোটের সামনের অংশের তলা ফেটে যায়। যাত্রীরা বার বার চালককে স্পিডবোট ঘুরিয়ে ঘাটে নিয়ে আসতে বলেছে। কিন্তু সে যাত্রীদের কথা শোনেনি।

কোড়ালিয়া-পানপট্টি নৌরুটের আহম্মেদ এন্টারপ্রাইজের কোড়ালিয়াঘাটের ম্যানেজার বশির উদ্দিন বলেন, নিখোঁজদের উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

রাঙ্গাবালী থানার অফিসার ইনচার্জ আলী আহম্মেদ বলেন, খবর শুনেছি। আমরা উদ্ধার তৎপরতার সাথে যুক্ত হতে যাচ্ছি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মাশফাকুর রহমান বলেন, ১৭ জন যাত্রী নিয়ে স্পিডবোট ছাড়ার কথা নয়। বৈরী আবহাওয়ার মধ্যে স্পিডবোট ছাড়াও ঠিক হয়নি। আমি ঘাটে এসেছি, খোঁজ খবর নিচ্ছি।

আন্দোলন৭১/গোফরান/জিকে

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2018 Andolon71
Theme Developed BY Rokonuddin