বৃহস্পতিবার,১৪ নভেম্বর, ২০১৯ অপরাহ্ন

হাবিপ্রবিতে সমাজবিজ্ঞান বিভাগের ১ম ব্যাচের ফেস্ট অনুষ্ঠিত

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ০৮ নভেম্বার, ২০১৯ ১১ ৪৭
  • 352 বার পঠিত

হাবিপ্রবি প্রতিনিধি-

চার (৪) বছর! ২০১৬ সালের শীতের এক সকালে বয়স ১৯-এর কোঠার ১১৬ জন তরুণ-তরুণী অতি আগ্রহে বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবনের প্রথম দিনটি উদযাপন করলো। আজ ২০১৯ সালের শেষের দিকে পূর্ণতা পেতে চলেছে চার (৪) বছরের বন্ধুত্ব।

অনেক সীমাবদ্ধতা, সুখ-দুঃখ,হাসি-কান্না ও কঠোর পরিশ্রমের মধ্যদিয়ে দীর্ঘ অনার্স জীবনের শেষলগ্নে এসেছে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) সমাজবিজ্ঞান বিভাগের ১ম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা।উদ্দেশ্য বিশ্ববিদ্যালয় জীবন শেষে বাংলাদেশের উন্নয়নে একনিষ্ঠ কাজ করে একজন সুনাগরিক ও দেশপ্রেমিক হওয়া।

২০১৫ সালের শেষের দিকে উচ্চ শিক্ষার্জনের জন্য উত্তরবঙ্গের প্রথম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি যুদ্ধে লড়াই করে উত্তীর্ণ হয়ে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন বিভাগে পড়ালেখার সুযোগ করে নেয় সমাজবিজ্ঞান বিভাগের ১ম ব্যাচের ১১৬ জন শিক্ষার্থী।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল বাধা বিপত্তি অতিক্রম করে অনার্স জীবনে দ্বারপ্রান্তে এসে বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর) সমাজবিজ্ঞান বিভাগের প্রথম ব্যাচের শিক্ষার্থীদের ফেস্ট অনুষ্ঠিত হয়েছে।জমকালো খাওয়া-দাওয়া, গান-নাচ, ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণসহ ছাত্রীদের পরনে ছিলো শাড়ি ও ছাত্রদের পাঞ্জাবি।

হয়ত অনার্স শেষে বন্ধুদের নিয়ে একসাথে আড্ডা, ক্লাসের ফাঁকে একসাথে গান গাওয়া ও খুনসুটি করতেও দেখা যাবে না। সবাই যার যার ভবিষ্যৎ কর্মসংস্থান ও সাংসারিক জীবন নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পরবে। আর তাই ১ম ব্যাচের ফেস্টের মাধ্যমে স্মরণীয় করে রাখতে শিক্ষার্থীরা নেচে-গেয়ে আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠেন।

শিক্ষার্থীদের অনার্সের চার বছরের শিক্ষা জীবনে বিভাগীয় শিক্ষকদের অবদান অতুলনীয়। এ বিভাগের সভাপতি সহযোগী অধ্যাপক মো আব্দুর রশিদ নিজের অভিজ্ঞতা ও পারদর্শিতায় এবং বিভাগের অন্যান্য শিক্ষকগণের সহযোগিতায় বিভাগটিকে একটি পরিবারে পরিণত করেছেন।পরিবারে যেমন প্রতিটি সদস্যের অধিকার সমান ঠিক তেমনি ভাবে এ বিভাগের প্রতিটি শিক্ষার্থীদের অধিকারও সমান।

বিভাগের অন্যান্য শিক্ষকগণের মধ্যে রয়েছেন সহকারী অধ্যাপক হাসান জামিল জেনিথ, সহকারী অধ্যাপক আশরাফি বিনতে আকরাম, সহকারী অধ্যাপক মোঃ সাইফুদ্দিন দুরুদ ও সহকারী অধ্যাপক সাবরিনা মোস্তাফিজ। শিক্ষকদের পাশাপাশি বিভাগের অফিসিয়াল ষ্টাফরাও আন্তরিকতার সাথে কাজ করে যাচ্ছেন।

আন্দোলন৭১/আজিজুর/কাজী

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2018 Rokonuddin
Theme Developed BY Rokonuddin